Skip to content

জেনে নিন ভিরিঙ্গি মায়ের শ্মশান কালি মন্দির কিছু অজানা তথ্য

আমরা সবাই জানি শুধু পশ্চিমবঙ্গ নয় সারা ভারত জুড়ে দুর্গাপুর বেশ বড় ও উন্নত একটি শিল্পাঞ্চল।

কিন্তু তা ছাড়াও দুর্গাপুর এর অন্যত্র একটি বিচিত্র ও শুভ স্থান হচ্ছে শ্রী শ্রী ভিরিঙ্গি মায়ের শ্মশান কালি মন্দির।



মন্দিরটি প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৮৫২ সালে। খুব কম মানুষই আছেন যারা ভিরিঙ্গি কালি মায়ের কথা শোনেননি। সারা বছর বিভিন্ন জেলার মানুষের মনশকামনা পূরণের জন্য আসা যাওয়া হয়েই থাকে।

অমাবশ্যার ও কালীপুজোর দিন গুলো বিশেষ ভাবে মায়ের পুজো হয় ও ভক্তদের সমাগম বেশী হয়ে থাকে। মায়ের চিন্ময়ী রূপ ভক্তদের মনে আনন্দ, আসা ও সন্তুষ্টির জাগরণ তৈরী করে।


Bhiringi Kali Ma

মন্দিরটি একটি সমাধি স্থান এর উপর অবস্থান করছে। বেনাচিটির বাজারের মধ্যে ভিরিঙ্গি মায়ের মন্দির আছে যা বর্তমান দিনে পশ্চিমবঙ্গের মানচিত্রে এক অন্যতম কালী পীঠস্থানএ পরিণত হয়েছে।

মন্দিরের নীচে শায়িত আছেন মন্দিরের প্রতিষ্ঠতা অক্ষয় কুমার রায় ও তার পুত্র রবীন্দ্রনাথ রায়। পুত্রের সাহায্যে তৈরি হয়েছিল মন্দিরের বর্তমান রূপ মন্দির প্রাঙ্গনে মায়ের এক বিরল দৃশ্য দেখা যায়। সংকোটমোচন হনুমান এর কাঁধে নন্দী ভৃঙ্গি সহ মহাকালী।


Bhiringi Kali Mandir

মন্দিরের পশ্চাৎ দেশে সিদ্ধাসন নামক এক পবিত্র স্থান আছে যেখানে পঞ্চমুখী শিবলিঙ্গ বিরাজমান। দুর্গাপুর মিউনিসিপ্যাল করপোরেশন উদ্যোগে একটি বাঁধানো ঘাট ও আছে।

মায়ের মন্দিরের সামনে রয়েছে হাড়িখাট যেখানে বিশেষ সময়ে বলি হয়। তাছাড়াও এখানে আছে নাগেশ্বর, মহাকালভৈরবী, সিদ্ধিদাতা ও হনুমানজীর মন্দির আছে।



ভিরিঙ্গি মন্দির পুরাতন কাল এ একটি গ্রামের উপর অবস্থান করতো যেটির পশ্চিম পিঠে ছিল ধামাপুকুর যেখান থেকে তিনটে বিষ্ণুমূর্তি ও মহাদেবের চর নন্দী ও ভৃঙ্গি মূর্তি উদ্ধার হয়েছিল।

মা কালীকে ভোগ নিবেদন করার আগে চন্ডভৈরব দের খাওয়ার নিবেদন করা হয়। বলা হয় মন্দিরের প্রতিষ্ঠতা অক্ষয় কুমার রায় যখন তার গুরুদেবের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ, সেই গ্রামের মানুষ গুরুদেব শেষ কৃত্যের সময়ে এ তাঁর চিতা ভস্মর মধ্যে রুপোর মোহর দেখতে পেয়েছিল।



এই মন্দির জুড়েই আছে আরো অনেক রহস্যময় ঘটনা মা কালীকে ঘিরে। ভক্তদের দানেই এই মন্দির চালিত হচ্ছে ও কোনো ভক্তই খালি হাতে মায়ের মন্দির থেকে ফেরত যাননা।

[ Facebook এ update পেতে লাইক করুন আমাদের page ]

আরো লেটেস্ট খবর পড়ুন